Tamim Ahmed-
Tamim Ahmed
Freelancing
27 Dec 2021 (5 months ago)
Araihazar, Narayanganj, Dhaka, Bangladesh
ফ্রিল্যান্সার হওয়ার পূর্বে কতগুলো প্রশ্নের উত্তর?

ফ্রিল্যান্সিং-এর ভবিষ্যৎ কী?

ফ্রিল্যান্সিং-এর ভবিষ্যৎ এক কথায় অনেক ভালো। কারণ যত দিন যাচ্ছে পৃথিবী ততই উন্নত হচ্ছে। মানুষের বিভিন্ন রকম চাহিদা বাড়ছে। বিভিন্ন নতুন নতুন কোম্পানি গঠন হচ্ছে। নতুন নতুন প্রোডাক্ট আসছে। যেসব জিনিসের সাথে রয়েছে আইসিটির গভীর সম্পর্ক। এখন আইসিটি ছাড়া যেহেতু কোনো কোম্পানিকে কল্পনা করা যায় না, ঠিক তেমনি সেই কোম্পানির অনেক কাজকর্ম করার জন্য মানুষের প্রয়োজন হবে। আর কোম্পানিগুলো তাদের পে আউট বা কর্মচারীদের স্যালারি যা দিয়ে থাকে তা কমানোর জন্য আউটসোর্স করে ফ্রিল্যান্সারদের দিয়ে কাজ করিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন দিনের পর দিন।

এভাবে যত দিন যাচ্ছে তত বেশি ফ্রিল্যান্সার তৈরি হচ্ছে এবং বায়ারের সংখ্যা বাড়ছে। তাই বর্তমানে কিন্তু কমপিটিশন অনেক বেশি এবং আগের মতো আর এই ব্যাপারটি সহজ নেই। ভালো স্কিলওয়ালা মানুষের অভাব নেই এই পৃথীবিতে এখন। তাই আপনাকে নিজের স্কিলকেও খুব ভালোভাবে ডেভেলপ করে নিতে হবে। নয়তো অল্প কিছু স্কিল ডেভেলপ করে ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আসতে গেলে আপনি দু-দিনেই ঝরে পড়বেন।

শিক্ষাগত যোগ্যতা ও বয়স

শিক্ষাগত যোগ্যতা ও বয়স নিয়ে অনেকের চিন্তা রয়েই যায় যে, ফ্রিল্যান্সিং করতে গেলে শিক্ষাগত যোগ্যতা ও বয়সের তারতম্য কোনো প্রভাব ফেলবে কি না অথবা ১৮ বছরের নিচে হলে ফ্রিল্যান্সার হওয়া যাবে কি না ইত্যাদি। এর জন্য ছোট্ট করে বলতে হয়, ফ্রিল্যান্সিং যেহেতু আপনাকে কোনো অফিসে গিয়ে চাকরি করতে বলে না, সেহেতু এখানে সার্টিফিকেট দিয়ে ইন্টারভিউ-এর কোনো দরকার হয় না। এখানে প্রয়োজন হয় কাজের দক্ষতা। আর যদি বয়সের কথা বলি তবে এখানেও কোনো নির্ধারিত বয়স নেই। আপনি যদি ১৮ বছরের নিচে হয়ে থাকেন, ভোটার আইডি কার্ড বা পাসপোর্ট কিছুই না থাকে। তবে আপনার ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য যে সমস্ত ডকুমেন্টস প্রয়োজন সেগুলো নিজের বাবা-মা অথবা ভাই-বোনের ডকুমেন্টস ব্যবহার করলেই চলবে। কাজ আপনি নিজেই করবেন। শুধু নিবন্ধন তাদের নামে হবে। এক্ষেত্রে কোনো প্রকার সমস্যা হবে না।

কিন্তু আপনি তো ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কোনো একজন ব্যক্তির সাথে অনলাইনে যোগাযোগ করবেন অর্থাৎ আপনাকে দিয়ে যে কাজ করিয়ে নেবেন তিনি হতে পারেন বাংলাদেশি, হতে পারেন ইন্ডিয়ান, হতে পারেন আমেরিকান— তাহলে ভাবুন তো যে মানুষটির সাথে কাজ করবেন তার সাথে অবশ্যই আপনার ম্যাসেজ/কাভারসেশন হবে, তাই না? যদি আপনি হিন্দি জানেন তবে ইন্ডিয়া থেকে হলে আপনি হিন্দিতে কথা বলতে পারবেন, আর বাংলাদেশি হলে বাংলায় এবং অ্যামেরিকান হলে তো ইংরেজি ছাড়া কোনো কথাই নেই। প্রকৃতপক্ষে অনলাইনের কাজগুলো ইউরোপিয়ান, আমেরিকানরা বেশি করতে দেয় আর তাদের ভাষাটাও ইংরেজি।

অতএব ইংরেজি ছাড়া আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারবেন না। কিন্তু কাজ শেখা শুরু করতে পারেন। পাশাপাশি ইংরেজি ভাষাও পরিচর্চার মাধ্যমে কাজ শেখা শেষ হতে না হতেই ইংরেজিতে ভালোভাবে লিখতে, পড়তে ও বুঝতে হবে। স্পিকিং করতে পারলে সুবিধা বেশি পাওয়া যায়।

ইংরেজি মোটামুটি পারি, আমার দ্বারা হবে কি না

আপনি হয়তো ভাবছেন আপনি ইংরেজিতে খুব বেশি দক্ষ নন। মোটামুটি লিখতে পারেন কিন্তু বলতে গেলে আটকে যান। সমস্যা নেই লিখতে পারলে চলবে। কিন্তু আপনাকে ছোট্ট একটি উদাহরণ দিলে হয়তো বিষয়টি আরও পরিষ্কার হবে।

ধরুন আপনি উত্তরবঙ্গের, আর চাকরি করছেন দক্ষিণবঙ্গের একটি অফিসে, যেখানে তারা আঞ্চলিক ভষায় কথা বলে। তবে আপনি যদি উত্তরবঙ্গের ভাষা ব্যবহার করেন তবে কি অফিসের কর্মচারীরা বা মালিক ঠিকমতো বুঝতে পারবে? হ্যাঁ কিছুটা বুঝতে পারবে, কিন্তু পুরোটা বুঝতে অনেক সময় নষ্ট হবে এবং এখানে ঝামেলা সৃষ্টি হবে।

ঠিক এভাবেই ভাবুন, ইউরোপিয়ান, আমেরিকান ‘টাইম ইজ মানি’ ভাবেন। আর তারা কী চাইবে আপনার সাথে একটি কাজ নিয়ে কনভারসেশনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা নষ্ট করতে? বাংলাদেশ ও ইন্ডিয়াতে দক্ষ ভাষা জানা মানুষের অভাব নেই। তাই কোনো রকম ফাঁকি দিয়ে এই কাজ শিখতেও পারবেন না, কাজ করতেও পারবেন না। সুতরাং আজ থেকেই ইংরেজি পরিচর্চা করা শুরু করে দিন। এটি আপনার ভবিষ্যতেও অনেক কাজে আসবে। শুধু ফ্রিল্যান্সিং-এর জন্য নয়।

বর্তমানে ভালো ক্যারিয়ারের জন্য ইংরেজির গুরুত্ব আপনিই ভালো জানেন।

আর কী কী দক্ষতা প্রয়োজন?

ধরুন আপনি ইংরেজি ভালো জানেন। তাহলে কি আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন? হ্যাঁ অবশ্যই কিন্তু ছোট্ট একটি প্রশ্ন নিজেকে করুন :
ধরুন আপনি একটি বাইক কিনেছেন, কিন্তু ড্রাইভিং জানেন না। কীভাবে গিয়ার প্রেস করে কীভাবে নিউট্রাল করে, কীভাবে লাইট জ্বালাতে হয়, কীভাবে হার্ড ব্রেক ধরতে হয় ইত্যাদি আপনি জানেন না। এ অবস্থায় আপনি কি বাইকটি চালাতে পারবেন? আপনার উত্তর অবশ্যই ‘না’ হবে।

সুতরাং, আপনি যে মেশিন দিয়ে কাজ করবেন সে মেশিন সম্পর্কে আপনার ভালো ধারণা থাকতে হবে। আপনি কাজ করবেন কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটে, তবে অবশ্যই আপনাকে কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের হাফেজ হতে হবে। কম্পিউটারে ফাংশন জনিত কোনো সমস্যা হলে আপনি যদি অন্য কারো কাছে দৌড়ান বা ফেসবুক অ্যাকাউন্টের সমস্যা হলে আপনি যদি আরেকজনের কাছে হেল্প-এর জন্য দৌড়ান, তবে আপনার জন্য ফ্রিল্যান্সিং নয়। ফ্রিল্যান্সিং তার জন্য যে আপনার এসব সমস্যা সমাধান করার অভিজ্ঞতা রাখেন।

সুতরাং এমন কোনো মেজর সমস্যা হলে আপনি যেন নিজেই সেটির সমাধান করতে পারেন এ রকম দক্ষতা থাকতে হবে। যদি সমস্যাটি কোনো রকমই সমাধান না হয় তবে হয়তো রিপেয়ারার এর কাছে নিয়ে যেতে হবে। তারপরেও বেসিক যেসকল বিষয় সম্পর্কে অভিজ্ঞতা থাকতে

হবে সেগুলোর লিস্ট নিচে দেওয়া হলো :

১. কম্পিউটার চালু ও বন্ধ করতে জানতে হবে।

২. কম্পিউটারের মাইক্রোসফট অফিস প্রোগ্রামের বিষয়গুলো

সব জানতে হবে। (এক্ষেত্রে আপনি কম্পিউটারের জন্য ৬ মাসের একটি প্রশিক্ষণ নিতে পারেন।)

৩. টাইপিং স্পিড ভালো থাকতে হবে। এক্ষেত্রে কোনো স্পেসিফিক স্পিড নেই। যত ভালো করতে পারবেন ততই ভালো।

৪. সফটওয়্যার ইন্সটল ও রিমুভ করা জানতে হবে।

৫. ইন্টারনেট ব্রাউজিং সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে।

৬. ও ইন্টারনেট জনিত কোনো সমস্যায় পড়লে বা আপনি কোনো একটি জিনিস করতে পারছেন না, সেটির জন্য আপনার ফ্রেন্ডের কাছে হেল্প না চেয়ে গুগলে সার্চ করে সমস্যাটি সমাধানের জ্ঞান থাকতে হবে।

৭. উইন্ডোজ ইন্সটল করতে জানতে হবে।

৮. কোনো ফাংশনে সমস্যা হলে সমাধান করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

৯. কম্পিউটারে সফটওয়্যারজনিত কোনো সমস্যা হলে গুগলে সার্চ করে সমাধান করার জ্ঞান থাকতে হবে।

এখানে মোটামুটি যেসব লিস্ট দেওয়া হয়েছে এসব জানার পাশাপাশি ছোট্ট একটি উদাহরণ পেলে আপনি আরও পরিষ্কার হতে আপনি যদি একটি স্মার্ট ফোন ব্যবহার করে থাকেন, তবে ঐ ফোনের প্রায় ৮০% ফাংশন সম্পর্কে আপনি জানেন। আর ঠিক মোবাইলটি আপনি যেভাবে ব্যবহার করতে জানেন। কোনোকিছু বের করতে বা ইন্টারনেট ব্রাউজিং করতে কোনো সমস্যা হলে আপনি নিজেই সমাধান করেন। ঠিক সেভাবেই আপনাকে কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে।

অন্যদিকে আপনি যদি শুধু ফেসবুক, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার ইত্যাদি নিয়েই পড়ে থাকেন তবে আপনি অনেক পিছিয়ে। আপনাকে আরও ডিজিটাল হতে হবে। শুধু এসব মানেই ডিজিটাল নয়, আপনাকে আরও জানতে হবে, যেমন আপনি একটি অপরিচিত ওয়েবসাইটে ভিজিট করার পরে ওয়েবসাইটটি রিসার্চ করে জানতে পারেন সেটি কোন ওয়েবসাইট, কোন কোম্পানির ওয়েবসাইট, এখানে অ্যাকাউন্ট খোলা যায় কিনা, অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে কী কী তথ্য প্রয়োজন হয় ইত্যাদি। আপনাকে সর্বোপরি কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সম্পর্কে খুবই চালু ও দক্ষ হতে হবে।

লেখাপড়া বা চাকরির পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং

আমাদের অনেকেই আছি চাকরিজীবী অনেকেই আছি ছাত্রছাত্রী। সবারই একটি কৌতূহল থাকে যে চাকরির বা লেখাপড়ার পাশাপাশি এই পেশায় আসা যাবে কি-না।

হ্যাঁ অবশ্যই আপনি চাকরি বা লেখাপড়ার পাশাপাশি এই পেশায় আসতে পারেন। এটি আপনার একটি বাড়তি ইনকাম জোগাতে সহায়তা করবে। তবে অবশ্যই আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে যে লেখাপড়া বা চাকরির মধ্যে এই ফ্রিল্যান্সিং-এর জন্য যেন ব্যাঘাত না ঘটে। আপনি কোন ক্লাসে পড়েন অথবা কোন চাকরি করেন সেটি এখানে মুখ্য বিষয় নয়। এই বইটিতে যেসব বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে, সেগুলো আপনার মাঝে থাকলেই আপনি ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন।

একজন ফ্রিল্যান্সারের মাসিক আয়

আমরা অধিকাংশ মানুষই আগে এই প্রশ্ন করে থাকি যে ফ্রিল্যান্সিং করে মাসে কত টাকা আয় করা সম্ভব। এই প্রশ্নের উত্তর শুনলে হয়তো কেউ বিশ্বাস করতে চাইবে না। সত্যিকার অর্থে একজন ফ্রিল্যান্সার মাসে ১০০০ টাকা থেকে শুরু করে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। আবার তিনি যদি টিম নিয়ে কাজ করেন তাহলে সেটা আরও দিগুণ হতে পারে। কিন্তু একা কাজ করলে অন্তত ১০,০০০ টাকা থেকে শুরু করে ৪-৫ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করা সম্ভব। আর তার জন্য অবশ্যই সময়ের প্রয়োজন রয়েছে এবং পরিশ্রমের প্রয়োজন রয়েছে।

ফ্রিল্যান্সিং শিখতে কতদিন সময় লাগতে পারে?

এটি একটি ভুল প্রশ্ন। কেন? কারণ ফ্রিল্যান্সিং একটি পেশা। এটাকে শেখা যায় না। বলতে হবে যে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আমি যে কাজটি করব সেটি শিখতে কতদিন সময় লাগতে পারে? তবে এখানে আপনাকে নির্বাচন করতে হবে কোন কাজটি আপনি শিখতে ইচ্ছুক।

আবার কোন কাজটি আপনি শিখতে ইচ্ছুক এটি জানতে গেলে আপনাকে জানতে হবে কী কী কাজ অনলাইনের মাধ্যমে করে টাকা ইনকাম করা যায়। তার আগে “শিখতে কতদিন লাগবে” এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়। এক-এক ধরনের কাজ বিভিন্ন সময় ধরে শিখতে হয়। আপনি কোন কাজটি করবেন সেটি আগে জানা প্রয়োজন এবং সেই কাজের ভবিষ্যৎ কি তা-ও জানা প্রয়োজন।

249 Views
No Comments
Forward Messenger
. 23

Craigslist Update News
-
- -
Android Studios Earning Apps
-
- -
Basics Press Notice
1
Technology Updates
9
Electronics
2
Android Programing
16
iOS Programing
2
Computer Programing
13
Wireless Fidelity
4
Hacking tutorials
15
Mobile Networks
3
Videos Programing
5
Movie Review
4
Freelancing
33
Web Development
18
Social Network
23
Politics News
2
Education Guideline
6
Religious Fiction
15
Magic Tricks
3
LifeStyle
17
Uncategorized
39
No comments to “ফ্রিল্যান্সার হওয়ার পূর্বে কতগুলো প্রশ্নের উত্তর?”